টাইম টিউন ডেস্ক
প্রকাশিত:
১২ জুলাই, ২০১৯ ০২:৪৭ এএম


দুই দফায় ধর্ষণের পর হত্যাচেষ্টা করে মেয়রপুত্র


দুই দফায় ধর্ষণের পর হত্যাচেষ্টা করে মেয়রপুত্র

শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলায় কলেজছাত্রী ধর্ষণ মামলায় পৌরসভার মেয়র ইউনুছ ব্যাপারীর ছেলে মাসুদ ব্যাপারীকে আটকের ৮ দিনের মাথায় জামিন দেন আদালত। ধর্ষককে জামিন দেওয়ায় লোকমুখে ক্ষোভ প্রকাশ হয়। এরপর জামিনের ৩ দিন পর বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) আবারও মাসুদ ব্যাপারীকে আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে মামলার ৮ দিনের মাথায় মঙ্গলবার (৮ জুলাই) একই আদালতের একজন ভারপ্রাপ্ত নারী বিচারক মাসুদ ব্যাপারীকে অন্তবর্তীকালীন জামিন দেন। মাসুদকে জামিন দেওয়ার পর ফুঁসে ওঠে শরীয়তপুরের সুশীল সমাজ। পরে বুধবার (১০ জুলাই) শরীয়তপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন তারা। 

এরপর বৃহস্পতিবার মাসুদ ব্যাপারীকে আদালতে হাজির করে জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন জেলা ও দায়রা জজ প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস। এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন ভিকটিম ও তার মা-বাবা।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মির্জা হযরত আলী দৈনিক অধিকারকে জানান, গত ৮ জুলাই জজ সাহেব ছিলেন না। ম্যাডাম ভারপ্রাপ্তের দায়িত্বে থেকে জামিন দিয়েছেন। ওয়ার্ডার সিটে ১১ জুলাই পর্যন্ত ছিলো। পরে তারা জামিন স্থায়ী করার জন্য আবেদন করেছিল। এর বিরোধীতা করেছে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। পরে আসামির জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, গত ২৯ জুন রাতে ওই কলেজছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন। জাজিরার মুলনা ইউনিয়নের একটি গ্রামে তাদের বাড়ি। তিনি পড়ালেখার পাশাপাশি স্থানীয় একটি রোগ নির্ণয় কেন্দ্রে কাজ করেন। জাজিরা পৌর এলাকার আক্কেল মাহমুদ মুন্সিকান্দি মহল্লার বাসিন্দা মাসুদ ব্যাপারী ওই কলেজছাত্রীর দুঃসম্পর্কের আত্মীয়। ২৯ জুন বিকালে স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার কথা বলে ওই ছাত্রীকে বাড়িতে আসতে বলে মাসুদ। ওই ছাত্রী রোগ নির্ণয় কেন্দ্রের কাজ শেষ করে সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাসুদের বাড়িতে যান। সেখানে মাসুদের পরিবারের কাউকে না দেখে ফিরে আসার চেষ্টা করেন। এ সময় মাসুদ তাকে ঘরে আটকে রাখেন।

এরপর দুই দফা তাকে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে ওই ছাত্রীকে হত্যার চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ করা হয় মামলার অভিযোগ পত্রে। 


আপনার মতামত লিখুন :
বাংলাদেশ এর আরও খবর

আরো পড়ুন
শাহজালাল বিমানবন্দরে লাগেজ কাটার সময় ধরা খেল ৪ কর্মী

শাহজালাল বিমানবন্দরে লাগেজ কাটার সময় ধরা খেল ৪ কর্মী

অ্যারাবিয়ার একটি বিমান থেকে লাগেজ কেটে মালামাল চুরির সময় চারজনকে…

শিশুদের প্রতি যৌন নির্যাতনের সাজা মৃত্যুদণ্ড করতে যাচ্ছে ভারত

শিশুদের প্রতি যৌন নির্যাতনের সাজা মৃত্যুদণ্ড করতে যাচ্ছে ভারত

শিশুদের প্রতি যৌন নির্যাতন রুখতে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয়…

সেনা কবরস্থানে এরশাদের দাফন আগামীকাল

সেনা কবরস্থানে এরশাদের দাফন আগামীকাল

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদের জানাজা…

আগের তুলনায় সীমান্তে হত্যা অনেকটা কমেছে
আগের তুলনায় সীমান্তে হত্যা অনেকটা কমেছে

আগের তুলনায় সীমান্তে হত্যা অনেকটা কমেছে

আগের তুলনায় সীমান্তে হত্যা অনেকটা কমে এসেছে বলে দাবি করেছেন…

টিকটক ভিডিও বানানোর জন্য সুরমা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ কিশোর, ৪৮ ঘন্টা পর মিলল লাশ

টিকটক ভিডিও বানানোর জন্য সুরমা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ কিশোর, ৪৮ ঘন্টা পর মিলল লাশ

সাম্প্রতিক সময়ে ভাইরাল হওয়া জনপ্রিয় গান ‘তরে ভুলে যাওয়ার লাগি…

ধর্ষণ রুখতে কঠোর আইন প্রণয়নের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ধর্ষণ রুখতে কঠোর আইন প্রণয়নের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন করে অপরাধীদের কঠোর শাস্তি প্রদানের…

সিলেট দিন দুপুরে ছিনতাই গোলাপগঞ্জে টাকাসহ আটক ৩

সিলেট দিন দুপুরে ছিনতাই গোলাপগঞ্জে টাকাসহ আটক ৩

সিলেটের শাহপরাণ থেকে টাকা ছিনতাই করে পালিয়ে যাওয়ার সময় ধাওয়া…

‘পদ্মা সেতুর জন্য মাথা লাগবে’ গুজবে আটক ১

‘পদ্মা সেতুর জন্য মাথা লাগবে’ গুজবে আটক ১

ছেলে ধরা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস ও ম্যাসেঞ্জারের…