টাইম টিউন ডেস্ক
প্রকাশিত:
১৬ জুন, ২০১৯ ০৯:৫৫ পিএম


রুমিন ফারহানার বক্তব্যে আজও উত্তপ্ত সংসদ


রুমিন ফারহানার বক্তব্যে আজও উত্তপ্ত সংসদ

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা


বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক এবং সংসদের বৈধতা নিয়ে ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা প্রশ্ন করায় আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠে সংসদ অধিবেশন। রোববার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনার সময় এমন উত্তপ্ত পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

নির্ধারিত ১০ মিনিটের বক্তৃতায় তিন দফায় বাধার সম্মুখিন হন রুমিন ফারহানা। তিনি বলেন, এই সংসদের কেউ বলতে পারবেন জনগণের প্রত্যেক্ষ ভোটে নির্বাচিত? কেউ বলতে পারবেন না। এই কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে সরকারি দলের সদস্যরা হই হই করতে থাকেন। এক পর্যায়ে ডেপুটি স্পিকার তার বক্তব্য থামিয়ে বলেন, আপনি বাজেটের বাইরে এমন কোনো কথা বলবেন না যাতে সংসদ উত্তপ্ত হয়।

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেন, এই সংসদে আসার আগে সংসদ নেতা বলেছিলেন আমাদের কথা বলতে দেবেন। কিন্তু আমার প্রথম বক্তৃতার দুই মিনিটের এক মিনিটও শান্তিমতো কথা বলতে পারিনি। একই ঘটনা আজকেও। কথা শুরু করার ৩৬ সেকেন্ডের মাথায় তার বক্তৃতা থামিয়ে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, এমন কথা বলবেন না যাতে বিরোধী পক্ষ উত্তেজিত হয়। পুনরায় বক্তব্য শুরু করে বলেন, আমরা কথা বলতে পারছি না। কোনো গণতন্ত্রের কথা বলছি। আমি আমার দলের কথা বলব, তারা তাদের দলের কথা বলবে।

প্রশ্ন রেখে বলেন, আমি দাঁড়াবার সঙ্গে সঙ্গে পুরো সংসদ যদি উত্তেজিত হয়ে যায়, তাহলে কীভাবে কথা বলব? পুরো ১০ মিনিটের বক্তৃতায় কয়েক সেকেন্ড শুধু সম্পূরক বাজেটের ওপর আলোচনা করেন। তার সেই আলোচনায় বলেন, ২০১০-১১ অর্থবছর থেকে এ পর্যন্ত বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে ৭৬ শতাংশ। সরকারের সক্ষমতা দিন দিন কমছে।

নির্বাচন কমিশনে ব্যয় বাড়ানোয় সমালোচনা করে ব্যারিস্টার ফারহানা বলেন, নির্বাচন কমিশনের ব্যয় বাড়ানো হয়েছে। কি নির্বাচন তারা করেছে?

‘আমার একটা কথায় পুরো সংসদ উত্তপ্ত। কলামের পর কলাম লেখা হয়। এই সংসদে যারা আছেন, তারা আল্লাহকে হাজির নাজির করে বলুক তারা জনগণের প্রত্যেক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন? তারা নিজের বিবেকের কাছে প্রশ্ন করুক সবাই উত্তর পেয়ে যাবেন।’ বক্তৃতার ৪ মিনিট ৫৬ সেকেন্ডে আবারও বাঁধা প্রদান করা হয়। এভাবেই তার ১০ মিনিটের বক্তৃতা শেষ করেন।

পরে ডেপুটি স্পিকার তাকে উদ্দেশ্যে বলেন, আপনি বাজেটের বাইরে ও সংসদীয় ভাষার বাইরে যে কথাগুলো বলেছেন তার সবকথা সংসদীয় প্রসিডিউর থেকে এক্সপাঞ্জ করা হল। এই কথা বলার পর বিএনপির সবাই অধিবেশন থেকে বেরিয়ে যান। পরে অবশ্য আবার অধিবেশনে ফেরেন।


আপনার মতামত লিখুন :
বাংলাদেশ এর আরও খবর

আরো পড়ুন
আমার মায়ের নাম বাংলাদেশ : আবদুল্লাহ জাওয়াদ

আমার মায়ের নাম বাংলাদেশ : আবদুল্লাহ জাওয়াদ

আমার মায়ের কোল জুড়ে রাক্ষসের বসবাস। মায়ের আঁচলে নিরাপদ রক্ষঃ-শিশু…

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় আপন মাকে খুন করল মেয়ে

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় আপন মাকে খুন করল মেয়ে

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের সহযোগিতায় স্কুল শিক্ষিকা আপন মাকে…

মুন্সীগঞ্জে আবরার হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

মুন্সীগঞ্জে আবরার হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে ও খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক…

বাতিলের বিরুদ্ধে আল্লামা খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী’র অনড় অবস্থান
কী ঘটেছিল রাজধানীর গাউসুল আজম মসজিদে

বাতিলের বিরুদ্ধে আল্লামা খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী’র অনড় অবস্থান

রাজধানীর উত্তরা ১৩ নং সেক্টরে অবস্থিত গাউসুল আজম জামে মসজিদের…

দানবের জন্ম

দানবের জন্ম

ছাত্রলীগের ছেলেরা আবরার ফাহাদকে মেরে ফেলেছে (তাকে কীভাবে মেরেছে প্রথমে…

পিছিয়ে গেল সম্রাটের রিমান্ড শুনানি

পিছিয়ে গেল সম্রাটের রিমান্ড শুনানি

সদ্য বহিষ্কার হওয়া যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন…

ফাহাদ হত্যার ঘটনায় যে বার্তা দিল যুক্তরাজ্য

ফাহাদ হত্যার ঘটনায় যে বার্তা দিল যুক্তরাজ্য

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যার…