রাগিব রব্বানি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত:
১৩ জুন, ২০১৯ ০৬:২৯ পিএম


তাবলিগ জামাতের আভ্যন্তরীণ বিবাদ প্রভাব ফেলছে পারিবারিক ও সামাজিক সম্পর্কেও


তাবলিগ জামাতের আভ্যন্তরীণ বিবাদ প্রভাব ফেলছে পারিবারিক ও সামাজিক সম্পর্কেও

বাংলাদেশ বা বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে তাবলিগ জামাত এই দুই/তিন বছর আগেও ছিল সম্পূর্ণ নির্দলীয় নির্বিবাদী একনিষ্ঠ একটি জামাত। মানুষের দ্বারে দ্বারে ইসলামের মৌলিক দাওয়াত নিয়ে যাওয়া এবং পথহারা মুসলিমদেরকে সুপথে ফিরিয়ে আনাই ছিল তাঁদের একমাত্র কাজ। অসংখ্য মানুষ হেদায়েতের আবে জমজমে স্নাত হয়েছেন এই তাবলিগ জামাতের মাধ্যমে। পেয়েছেন সঠিক পথের দিশা। এইসবের বাইরে তাবলিগ জামাতের সবচেয়ে বড় যে বৈশিষ্ট্য, সেটা ছিল আনুগত্য ও একতা।

প্রথমে বিশ্ব তাবলিগের নেতৃত্ব একক আমিরের অধীনে পরিচালিত হলেও বেশ অনেক বছর ধরে তাবলিগের কয়েকজন বড় মুরব্বির তত্ত্বাবধানে শুরা ভিত্তিক নেতৃত্বে চলছিল তাবলিগের বৈশ্বিক কার্যক্রম। এদের মধ্যে একজন মাওলানা সাদ কান্ধলভি। শুরা ভিত্তিক পরিচালনার বিরোধিতা করে তাঁর একক নেতৃত্বে তাবলিগ পরিচালনার দাবি নিয়ে আভ্যন্তরীণ গোলমাল আরও আগ থেকে চললেও বছর দুয়েক আগে তিনি নিজেকে সরাসরি আমির ঘোষণা করে অবশিষ্ট শুরা সদস্যকে তাঁর আনুগত্য গ্রহণে চাপ সৃষ্টি করেন। এখান থেকেই শুরু হয় বিরোধ। পাশাপাশি মাওলানা সাদ তাবলিগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে কুরআন-হাদিস-বিরোধী বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিতে শুরু করেন। এতে করে তাবলিগের বড় একটি অংশ যেমন তাঁর আনুগত্য মানতে অস্বীকার করে, তেম্নি দেওবন্দসহ দেওবন্দ ঘরানার নেতৃস্থানীয় ওলামায়ে কেরাম তাঁর এমন বক্তব্য-বিবৃতির বিরোধিতা করে তা থেকে ফিরে আসবার আহ্বান জানান তাঁকে। কিন্তু সাদ কান্ধলভী তাঁর বিভ্রান্তিকর বক্তব্য থেকে যেমন ফিরে আসেননি, তেম্নি তাবলিগের স্বঘোষিত বিশ্ব আমিরের পদ থেকেও সরে দাঁড়াননি। বরং নিজের ক্ষমতা ও বাহুবলে তাবলিগের মূল মারকাজ দিল্লির নিজামুদ্দিন বাংলাওয়ালি মসজিদে প্রতিষ্ঠা করেছেন একক আধিপত্য।

ফলে ওলামায়ে কেরাম এবং তাবলিগের অধিকাংশ মুরব্বি ও সাথিবর্গ তাঁকে বয়কট করেন। তাবলিগে শুরু হয় সংকট। নানা তিক্ত ঘটনা উপঘটনা। এরই জের ধরে তাবলিগি সাথিদের মধ্যে এখন নিদারুণ বিবাদ তৈরি হয়ে আছে। একসময় যাঁরা এক থালে একসঙ্গে খাবার খেয়েছেন, তাঁরা এখন পরস্পর পরস্পরের মুখ দেখতেও নারাজ।

তাবলিগি সাথিদের এ বিরোধ কোনো কোনো ক্ষেত্রে তাঁদের পারিবারিক ও সামাজিক সম্পর্কেও টানাপোড়েনের সৃষ্টি করেছে। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কোনো কোনো জায়গায় একই পরিবারে বাবা সাদের অনুসারী, ছেলে ওলামায়ে কেরামের। আবার কখনো কখনো স্বামী ওলামায়ে কেরামের অনুসারী, স্ত্রী সাদভক্ত। ফলে এসব পরিবারে তৈরি হয়েছে নিদারুণ এক সংকট। কোনো কোনো জায়গায় দেখা গেছে সাদভক্ত বাবার ছেলে ওলামায়ে কেরামের অনুসারী হবার কারণে বাবা ছেলেকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন।

যে এলাকায় মাওলানা সাদের প্রভাব বেশি, সেখানে ওলামায়ে কেরামের অনুসারীদের কোনঠাসা করে রাখা হয়েছে। আবার যে এলাকায় ওলামায়ে কেরাম বা শুরাপন্থী তাবলিগিদের অনুসারী বেশি সে এলাকায় সাদপন্থী কেউ থাকলে তাঁকে অনেকটাই সমাজবিচ্ছিন্ন হয়ে চলাফেরা করতে হয়।

কোনো কোনো মসজিদের কমিটিতে সাদপন্থীদের প্রভাব থাকায়, সে মসজিদের ইমাম মাওলানা সাদের ভ্রান্তি নিয়ে আলোচনা করলে কমিটি কর্তৃক তাঁকে মসজিদ থেকে বের করে দেবার বা ইমামতি থেকে অব্যাহতি দেবার ঘটনাও আছে অনেক।

রাজধানীর বারিধারায় একটি মসজিদে মসজিদের খতিব গত ১ ডিসেম্বর ইজতেমা মাঠে প্রস্তুতিকাজের জন্য অবস্থানরত মাদরাসাছাত্র ও শুরাপন্থী তাবলিগি সাথিদের ওপর সাদপন্থীদের অতর্কিত ও নৃশংস হামলার প্রতিবাদে বক্তব্য দিলে মসজিদ কমিটিতে থাকা প্রভাবশালী সাদপন্থীদের ইন্ধনে ওই মসজিদের খতিব পদ থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সে-সময় বেশ আলোড়নও তুলেছিল।

শরিয়তপুরে জেলা পর্যায়ের এক তাবলিগি মুরব্বি সাদপন্থী হবার কারণে এলাকায় বেশ কোনঠাসা জীবনযাপন করছেন। স্থানীয় ধর্মীয় সমাজ ওলামায়ে কেরামের অনুসারী হওয়ায় নিজের মসজিদে নামাজ পড়তেও যেতে পারেন না তিনি। অনেকটা একঘরে হয়ে আছেন বেশ অনেক দিন ধরে। আবার তাঁরই মেয়ে-জামাই শুরাপন্থী তাবলিগি সাথি হবার কারণে পারিবারিকভাবে একটা বিরোধও চলছে মেয়ে-জামাইর সঙ্গে।

রাজধানীর খিলগাঁওয়ের এক তাবলিগি সাথি স্ত্রীকে নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত তাবলিগের মেহনত করে আসছেন৷ তাবলিগের বিরোধ দৃশ্যমান হবার পর তিনি আলেমদের অনুসরণ করলেও স্ত্রী সাদ সাহেবের একান্ত ভক্ত হয়ে আছেন। ফলে সাংসারিক জীবনে বেশ অস্থিরতার ভেতর দিয়েই যাচ্ছেন ওই দম্পতি।

নামকরা একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর দীর্ঘদিন ধরে তাবলিগের মেহনত করে আসছেন। সে সুবাদে নিজের একমাত্র ছেলেকে মাদরাসায় পড়িয়ে আলেম বানিয়েছেন। তাবলিগে দ্বন্দ্ব শুরু হবার পর ওই প্রফেসর মওলানা সাদের আনুগত্য কবুল করেন, আর ছেলে আলেম হবার কারণে এবং মাওলানা সাদের ভ্রান্তি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হবার দরুণ তিনি শুরাপন্থী তাবলিগ এবং আলেমদের অনুসরণকে কবুল করেন। ফলে বাপ-বেটার মধ্যে তৈরি হয়ে যায় বড় একটা দূরত্ব। ছেলে এই দূরত্ব দূর করার জন্য তাবলিগের কর্মপ্রক্রিয়া থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। কিন্তু এতেও বাবাকে সন্তুষ্ট করতে পারেননি৷ পরে বাধ্য হয়ে বাবার সন্তুষ্টির জন্য সাদপন্থীদের সঙ্গে এখন তাবলিগের মেহনত চালিয়ে যাচ্ছেন।

বিচ্ছিন্ন ঘটনা হলেও সারা দেশে এমন টানাপোড়েনের সংখ্যা নিতান্তই কম নয়। তাবলিগ-বিরোধের এ প্রভাব অনেকের পারিবারিক জীবনে যেমন বিস্তৃত হচ্ছে, তেম্নি সামাজিকভাবেও তৈরি করছে নতুন এক সংকট। তাবলিগের নিদারুণ এ সংকট থেকে উত্তরিত না হলে শত বছরের ঐতিহ্যমণ্ডিত দাওয়াতের কার্যকর এ ধারাটি যেমন তার জৌলুশ হারাবে, তেম্নি সাধারণ মানুষের কাছেও কমে যাবে এর অমায়িক আবেদন।


আপনার মতামত লিখুন :
বিশেষ প্রতিবেদন এর আরও খবর

আরো পড়ুন
চবিতে বাংলার মুখের সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষরোপন কর্মসূচি শুরু

চবিতে বাংলার মুখের সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষরোপন কর্মসূচি শুরু

"মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার তিনটি করে গাছ লাগান" বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয়…

আসছে, নাদিয়া - আখম হাসানের ভাবের চেয়ারম্যান

আসছে, নাদিয়া - আখম হাসানের" ভাবের চেয়ারম্যান"

সাম্প্রতিক পুবাইলের মনোরম লোকেশনে নির্মিত হল একক নাটক "ভাবের চেয়ারম্যানের"…

বুড়িগঙ্গা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনায় মূন্সীগঞ্জে শোকের মাতম

বুড়িগঙ্গা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনায় মূন্সীগঞ্জে শোকের মাতম

রাজধানীর বুড়িগঙ্গা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনায় ২৭ জনের মরদেহ উদ্ধার…

extrajudicial killing violates the rule of justice

extrajudicial killing violates the rule of justice

The word justice is legal word. many of is accquented…

বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ক্লাস: সমস্যা সমাধানে যা করতে হবে

বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ক্লাস: সমস্যা সমাধানে যা করতে হবে

কোভিড- ১৯ র কবলে পুরো বিশ্ব। সমস্ত পৃথিবী নাস্তানাবুদ। বর্তমানে…

রাস্তার ধস ঠেকাতে বৃক্ষরোপণ করলো এইচবিএফ

রাস্তার ধস ঠেকাতে বৃক্ষরোপণ করলো এইচবিএফ

মাটি কেটে উচু রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু বর্ষাকাল চলায়…

ধর্ষকের শাস্তির দাবিতে কানাইঘাট স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের মানববন্ধন

ধর্ষকের শাস্তির দাবিতে কানাইঘাট স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের মানববন্ধন

সিলেটের কানাইঘাটে অস্ত্রের মুখে এক গৃহবধূকে (২২) গণধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষকদের…

অভি হত্যার বিচারের দাবিতে চবি ছাত্রদলের মানববন্ধন

অভি হত্যার বিচারের দাবিতে চবি ছাত্রদলের মানববন্ধন

মাদক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল নেতা মীর…