প্রকাশিত:
২৫ মে, ২০১৯ ১০:৫১ পিএম
আপডেট:
২৬ মে, ২০১৯ ০২:৪১ এএম


মদিনা মার্কেট মালিক ম্যানশনের কেয়ারটেকার আলীর আসল মুখোশ


মদিনা মার্কেট মালিক ম্যানশনের কেয়ারটেকার আলীর আসল মুখোশ

কেয়ারটেকার আলী


সিলেট জেলার জালালাবাদ থানা দিন টুকের বাজার ইউনিয়নের কুমারগাঁও এলাকার ময়না মিয়ার ছেলে আলী। তার বাবা মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত সিলেটের কোতোয়ালী থানাধীন মদিনা মার্কেটের কেয়ারটেকার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। মৃত্যুর আগে তার বাবা মার্কেটের জমিদারের হাতে তুলে দিয়ে যান। আলীকে এরই ধারাবাহিকতায় আলীর প্রথমদিকে জমিদারের বাসায় কাজ এরপর শুরু হয় কেয়ারটেকারি। জমিদারের পারিবারিকভাবে মার্কেটগুলো পৃথক হওয়ার পর জমিদারের মার্কেট ,মালিক ম্যানশন - সুপরিচিত নাম ভাঙ্গা মার্কেট ও জমিদারের বাসার কেয়ারটেকার হিসেবে দায়িত্ব  দিয়ে জমিদার লন্ডনে যান।

আলীর বিভিন্ন অপকর্ম ও ব্যবসায়ীদের নানাভাবে হয়রানির বিষয়  ২২ মে টাইম টিউন সহ বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত হয় এতে আলীর বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় ।এতে আলী এই মার্কেটের অনেক ব্যবসায়ীকে বলেন এসব তথ্য পত্রিকা কে বা কারা দিয়েছে তিনি অনেকে সন্দেহ করছেন। ২২ তারিখের নিউজের পর থেকে এ মার্কেটের দোকানদাররা এক আতঙ্কে আছে বলে গোপন সূত্রে জানা গেছে।

টাইম টিউন কে নাম প্রকাশ করা অনিচ্ছুক এই মার্কেটের কিছু ব্যবসায়ী আলীর আরো কিছু মুখোশ খুলে দিতে চান জনসাধারণের সামনে তারা বলেন আলীকে দেখতে যতটা ভদ্র বাস্তবে ততটা নয় আলীর আসল রূপ একটা হিংস্র প্রাণীর মতো। ব্যবসায়ীরা বলেন টাইম টিউনের ২২ মে যে নিউজ প্রকাশিত হয়েছে সবগুলোই বাস্তব তবে এই মার্কেটের কেউ সরাসরি সাক্ষী দিতে আসবে না এটা সাংবাদিকরা ভাল করে জানেন এবং মার্কেটের সামনে এল,জি,ই,ডি রাস্তার উপর উপকারের নামে ভ্যান গাড়ি বসিয়ে প্রতিদিন তোলা হচ্ছে গরিব মানুষের কাছ থেকে একশত পঞ্চাশ টাকা।

আরও পড়ুন >> মদিনা মার্কেটের কেয়ারটেকার আলীর কাছে মার্কেট ব্যবসায়ীরা জিম্মি

কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে আসছে সাপ, এমনি এক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিলেন ব্যবসায়ীরা ,তারা বলেন মদিনা মার্কেটের  অনেকেই দেখেছেন বছর তিনেক আগে মালিক ম্যানশন সামনে মেইন রোডের পাশে জয়নাল নামে এক ব্যক্তি একটি ঝুপড়ি ঘরের মতো কসমেটিকসের দোকান ছিল যার ভাড়া ছিল প্রতিদিন ১২০ টাকা। জয়নাল ও তার স্ত্রীর মধ্যে সারাক্ষণ ঝগড়া বেঁধে থাকতো আর এই ঝগড়া কে কেন্দ্র করে আলী ও এই মার্কেটেরই একজন ব্যবসায়ীকে নেওয়া হতো বিচারক হিসেবে। আর এই বিচারকের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আলী পরকীয়া করেন এই জয়নালের স্ত্রীর সাথে। জয়নাল ছিল দেখতে কিট কিটে কালো শরীরটা ছিল তার চিকনা মরিচের মত গঠন টাও তেমন ভালো না, তার স্ত্রী ছিল একজন ফুটফুটে সুন্দরী বিচারক সেজে আলীর শুরু হয় প্রক্রিয়া। জয়নালের পরিবারের ঝগড়াঝাটি কমে আসার কথা থাকলেও কমছে না কিন্তু দিন দিন বাড়ছে, এক পর্যায়ে জয়নালের স্ত্রি ডিভোর্স হয়ে যায়। অবশেষে জয়নাল এই মার্কেট ছেড়ে দেশের বাড়ি চলে যায় জয়নালের দেশের বাড়ি ছিল কুমিল্লা। এ প্রক্রিয়ার বিষয়টা এই মার্কেটের ব্যবসায়ী অনেকেই জানেন কিন্তু কেউ বাধা দিতে চাইলেও তখন পারছিলেনা। তাদের ভয় একটাই কাজ করছে কিছু বলতে গেলেই দোকান ছাড়ার নির্দেশ দিয়ে দিবে এই ক্ষমতাসীন কেয়ারটেকার আলী । ব্যবসায়ীরা বলেন আমরা একদিকে বেশ দুর্বল এই মার্কেটের যত ব্যবসায়ীরা আছে প্রত্যেকের চুক্তিনামা একটি খাতার উপর স্ট্যাম্পের উপর কোন লিখিত দেওয়া হয় না আর এ কারণে যে কোন সময় তারা বাহির করে দিতে পারে ব্যবসায়ীদেরকে।

বাংলার একটি প্রবাদ বাক্য আছে ,গাছ যেমনি হয় ফুল তার তেমনি হয় ,আমের গাছ থেকে যেমন কাঁঠাল আশা করা যায় না তেমনি কেয়ারটেকার আলী। আলী যেমন তার ছেলেগুলো এমন। কেয়ারটেকার আলীর ছেলে কাউসারের মদিনা মার্কেট পয়েন্ট ক্যাফে রয়েল নামে একটি স্নেক বার আছে গ্লাসের ভিতর খাবার যতটা চকচকে সুন্দর বাস্তবে ততটা নয় ,এসব তৈরি হচ্ছে নোংরা পরিবেশে পাশের  ভাঙ্গা মার্কেটের ভিতরে। শুধু তাই নয় সারাদিন বিক্রয়ের পর যে খাবারগুলো থেকে যায় রাতে ফ্রিজিং করে পরদিন কাস্টমার কে খাওয়ানো হয় ।কোন কাস্টমার বাসি খাবার গন্ধ পেয়ে এ বিষয় নিয়ে কাস্টমার কাউসার বা তার দোকান স্টাফের সাথে কোন কিছু কথা হলে কাস্টমারদের সাথে দুর্ব্যবহার করছে আর এমন ঘটনা প্রতিদিনই ঘটছে যার উল্লেখযোগ্য পাঠানটুলা জামেয়ার শিক্ষক জনাব আলাউদ্দিন এবং গত তিন অথবা চারদিন আগে কাউসার ও তার দোকানের স্টাফ রা  সিলেট আদালতের অ্যাডভোকেট সৈয়দ শামীম পিপি সাবের সাথে যে আচরণ করা হয়েছে এটি অত্যান্ত দুঃখজনক,এ্যাডভোকেট এর সাথে গালাগালি এবং কুদে কুদে মারতে আসে ঘটনার খবর পেয়ে কিছুক্ষণ পর মদিনা মার্কেটের ব্যবসায়ী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি আমির হোসেন ঘটনাস্থলে আসেন আসার পর সভাপতি অ্যাডভোকেট এর কাছে কাউসার ও দোকানের স্টাফ দেরকে ক্ষমা চাওয়ান বিষয়টাকে স্বাভাবিকভাবেই শেষ করে দেন আমির হোসেন। উপস্থিত সময় প্রতিজ্ঞা করানো হয় এমন ঘটনা যেন আর না হয়। আসলেই কি এমন হবে না  এ বিষয়ে আশে পাশের দোকান ও সাধারণ পথচারীর কাছ থেকে জানতে গেলে তাদের কথা অনুসারে এমন আচরণ প্রতিদিন জনসাধারণের সাথে হচ্ছে ক্যাফে রয়েলের মালিক স্টাফ দের সাথে ।

বিষয়টি সুনিশ্চিত হতে অ্যাডভোকেট সৈয়দ শামীম পিপি সাথে টাইম টিউন মুঠোফোনে যোগাযোগ করে বিষয়টা জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়টি সত্য তবে বিষয়টা কষ্টদায়ক তিনি আরো বলেন আমাদের মত মানুষের সাথে এমন আচরণ মানতে বেশ কষ্ট হচ্ছে তবে সাধারণ মানুষের সাথে জানি কেমন আচরণ করে তারা।তিনি আরো বলেন আমাদের কাছ থেকে সাধারণ মানুষ কষ্ট পাওয়ারতো দূরের কথা আমরা সারাদিন কোটা দাঁড়াতে বিভিন্ন ধরনের মানুষের সাথে চলাফেরা এবং আমাদের সাথে মানুষ যেভাবে কথা বলে আমরা কারো প্রতি রাগান্বিত হই না, আর আমাদের সাথে এ কেমন আচরণ এটা বেশ কষ্টদায়ক ও দুঃখজনক। অ্যাডভোকেট আরো বলেন তাদের যে আচরণ এমন আচরণ মাঠে যারা গরু ছাগল চড়ায় তাদেরও এমন আচরণ নয়।

কাউসার তার ক্ষমতার বলে রাস্তার উপর জনসাধারণের ব্যঘাত ঘটিয়ে গরম তেল দিয়ে ভাজা হচ্ছে জিলাপি ,চানা পিয়াজু আর এই তেলের উপর যেকোনো সময় এক্সিডেন্ট হতে পারে। এ তেল কারো গায়ে পড়লে হয়তো পঙ্গু না হয় মৃত্যু,এ বিষয় নিয়ে যে কেউ কথা বললে উত্তেজিত হয়ে পড়েন আলী ও তার ছেলেরা। রাস্তার উপর জিলাপির ভাজার বিষয়ে মদিনা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি সদস্য কে জিজ্ঞেস করলে সমিতির অনেকেই উত্তর দেন আমরা অনেকবার বলেছি কিন্তু সে মানতে রাজি না স্বয়ং সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফ সাহেব বলে গেছেন। কেয়ারটেকার আলী ও তার ছেলে  এসব পরোয়া করছে না বলে ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা বলেন।

এ বিষয়ে মদিনা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি জয়েন্ট সেক্রেটারি বিন আমিনের সাথে টাইম টিউনের প্রতিনিধি মাসুদ রানা মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন মালিক ম্যানশন ও এই মার্কেট দোকানদারদের সম্পর্কে কোন ধারণা নেই। সমিতির অন্য সদস্যের সাথে যোগাযোগ করলে এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি না কমিটির অনেকেই।

কেয়ারটেকার আলীর অপকর্মের নিউজ টাইম টিউন সহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় আসার পর এই নাম্বার (০১৭৪২২৮৪৩২৭ ) থেকে কেয়ারটেকার আলী ছেলে কাউসার ও মামুন সাংবাদিকদের নাম্বার ম্যানেজ করে সাংবাদিকদের কে সন্ত্রাস ও মামলার ভয় ভীতি  এবং বিভিন্ন প্রাণনাশের হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন তারা।

বিষয়টি নিশ্চিত হতে কেয়ারটেকার আলীর সাথে টাইম টিউনের ক্রাইম ইউনিটর মাসুদ রানা মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ফোনটি রিসিভের পর সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে বেধড়ক গালাগালি তখন সাংবাদিক বলেন জনাব এ নিউজ আমি করিনি বিষয়টা আসলে কি জানতে চাচ্ছি এরপর পুরো বিষয়টি অস্বীকার করেন ফোনের এক পর্যায়ে লাইন কেটে দেন বার বার ট্রাই করার পর ফোন রিসিভ করছেন না কেয়ারটেকার আলী।

আরো সুনিশ্চিত,তথ্য পেতে ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোখলেসুর রহমানের সাথে টাইম টিউন ক্রাইম ইউনিট অনেকবার যোগাযোগ করে,রমজানের ব্যস্ততা থাকার কারণে টাইম টিউনের ক্রাইম ইউনিট যোগাযোগে ব্যর্থ হয়।
 

মদিনা মার্কেটের ক্যাফে রয়েলের সহ আরো চাঞ্চল্যকর ও ভয়ানক কিছু তথ্য পেতে আমাদের পরবর্তী পর্বে চোখ রাখুন।

আপনাকে বলছি : আমাদেরকে যদি কোন তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে চান এই ঠিকানায় ইমেল করুন Email : [email protected]


আপনার মতামত লিখুন :
আরো পড়ুন
বদলে যাচ্ছে কওমি মাদরাসার পাঠ্যপুস্তকের মান ও ধরণ
হস্তলিপি থেকে কম্পিউটার কম্পোজ

বদলে যাচ্ছে কওমি মাদরাসার পাঠ্যপুস্তকের মান ও ধরণ

কওমি মাদরাসার সিলেবাসভুক্ত আরবি-উর্দু-ফারসি কিতাবগুলো অদ্ভুত এক ফন্টে লেখা। ডিজিটাল…

বহুমুখী সমস্যায় জর্জরিত ক্যান্সার-চিকিৎসা-সেবা
ব্যয় ও দুর্ভোগে দিশেহারা ভুক্তভোগীরা

বহুমুখী সমস্যায় জর্জরিত ক্যান্সার-চিকিৎসা-সেবা

ক্যান্সার রোগটা কেবল মরণব্যাধিই না, একই সঙ্গে পুরো একটা পরিবারকে…

বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

আজ শনিবার সকালে বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার চরহোগলা গ্রামে ফখরুল হাওলাদার…

শিশু হাফেজ ছাত্রদের নিয়ে কি ব্যবসা চলছে?

শিশু হাফেজ ছাত্রদের নিয়ে কি ব্যবসা চলছে?

বিভিন্ন আরব ও মুসলিম রাষ্ট্রে অনেকগুলো দেশের অংশগ্রহণে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত…

বাহুবলে দ্বিগাম্বর ছড়ায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন,আদালতে মামলা

বাহুবলে দ্বিগাম্বর ছড়ায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন,আদালতে মামলা

হবিগঞ্জের বাহুবলে দিগাম্বর ছড়ায় অবৈধ ভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে প্রতিনিয়ত…

নবীগঞ্জে মানসিক প্রতিবন্ধী ছাকিব নিখোঁজ

নবীগঞ্জে মানসিক প্রতিবন্ধী ছাকিব নিখোঁজ

হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩নং পানিউমদা ইউনিয়নের বড়চর গ্রামের মোঃ…

মালয়েশিয়ার অবৈদের ধরার জন্য, কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে প্রশাসন

মালয়েশিয়ার অবৈদের ধরার জন্য, কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে প্রশাসন

মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সে দেশে থাকা অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে একটি…

পাঠাও বাইক সার্ভিস সম্পর্কে কাস্টমার যা বললেন

পাঠাও বাইক সার্ভিস সম্পর্কে কাস্টমার যা বললেন

‘উবার' বা ‘পাঠাও'-এর মতো রাইড শেয়ারিং সম্পর্কে অনেক পাঠক তাদের…