আহমাদ হুছাইন 

প্রকাশিত:
০৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০২:২৬ পিএম
আপডেট:
০৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০২:২৮ পিএম


পুরাতন ফারেগিনদের পুনরায় পরীক্ষা

বেফাক বোর্ডের বিজ্ঞপ্তি ও আমার কিছু ভাবনা


বেফাক বোর্ডের বিজ্ঞপ্তি ও আমার কিছু ভাবনা

১.
সম্প্রতি বাংলাদেশর সর্ববৃহৎ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া কর্তৃক একটি বিশেষ সার্কুলার সোস্যাল মিডিয়ার কল্যানে আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। যেখানে ২০১৭ সালের পূর্বের ১৫ বছরের ফুজালাদের মধ্যে শুধুমাত্র আগ্রহীদের জন্য আগামী ৫বছর (১৪৪১-১৪৪৫ হিজরী পর্যন্ত) যথানিয়মে বেফাকের মাধ্যমে নিবন্ধন করে পরীক্ষায় অংশগ্রহনের মাধ্যমে সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত আল-হাইয়্যাতুল উলিয়া বোর্ডের অধীনে  মাস্টার্স সমমানের সনদ লাভের কথা ঘোষনা করা হয়েছে। দেশের খ্যাতিমান শ্রদ্ধেয় দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের মাধ্যমে গৃহীত এই প্রস্তাবটি আমার মত হাজারো সাবেকদের হতাশ করেছে। 

হ্যাঁ, হতাশার কারণটি আজ এখানে স্পষ্ট করে বলতে চাই। বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্থা স্বাধীনতার পর থেকে এই কিছুদিন আগ পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির বাইরে ছিল। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম, সভা সমাবেশ, সেমিনার- সিম্পোজিয়াম, অবস্থান ধর্মঘট ও মুরব্বীদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় অবশেষে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে বহু কাংখিত সরকারি স্বীকৃতি লাভ করে। জাতীয় সংসদে আইন পাশ করে দেশের ৬টি কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের সমন্বয়ে হাইয়্যাতুল উলিয়ার অধীনে দারুল উলুম দেওবন্দের উসুলে হাস্তেগানার ভিত্তিতে দাওরায়ে হাদীসকে এম.এ পাশের সমমান ডিগ্রী প্রদান করা হয়। নবগঠিত হাইয়্যাতুল উলিয়া বোর্ডে বেফাকের একচ্ছত্র আধিপত্য বজায় রাখা হয়। দেশের সর্ববৃহৎ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড হিসেবে সরকার এটিকে যথাযথ মূল্যায়ন করেছে বলে মনে করি।

কিন্ত আফসোস হচ্ছে এই বোর্ডের সদ্য গৃহীত সিদ্ধান্তের জন্য। যথানিয়মে নিবন্ধন করে ১০/১১টি বিষয়ের পরীক্ষা দেওয়ার মত ধৈর্যশক্তি একযুগ আগে পড়ালেখার অধ্যায় সমাপ্তকারিদের কতটুকু অবশিষ্ট আছে? সাবেক ফারেগীনরা ইতিপূর্বে নিয়মিত ছাত্র হিসেবে সারা বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করে ছাত্র জীবনের শেষ পরীক্ষায় অংশ নিয়ে যে ফলাফল অর্জন করেছিল, একযুগ পরে এখন কী সবার পক্ষে আগেরমত ভালো/অতি ভালো ফলাফল অর্জন করা সম্ভব হবে? যদি সম্ভব না হয়, তবে সনদ লাভের আশায় ইজ্জতের বারটা বেজে যাবে, কারন আমাদের অনেকের সরাসরি ছাত্ররাও অতিতের মত আগামী ৫বছরও একি বোর্ডের অধীনে দাওরায়ে  হাদীসের পরীক্ষা দিবে। ঐসব ছাত্ররা হয়তো জানে, তাদের উস্তাজগণ নিজেদের সময়ে বোর্ডের সেরাদের একজন ছিলেন কিংবা ফাস্টক্লাস পেয়ে টাইটেল পাশ করেছেন। সময়ের ব্যবধানে মেন্টালী ও সাইকোলজিক্যলি সেইসব মেধাবীরা আগের মত কাংখিত ফলাফল অনেকই অর্জন করতে পারবে কি না সন্দেহ আছে। সুতরাং এই সকল বিষয় আমাদের আকাবির হযরাতগনের ভাবনায় থাকা উচিৎ ছিল। 

২.
সরকারি সনদ লাভের জন্য সাবেক কওমীয়ান ফারিগীনরা আবার পরীক্ষা দিতে হলে বিগত চার দলীয় জোট সরকারের আমলে আলিয়া মাদরাসার ফাযিল ও কামিলের স্বীকৃতির অর্জনের পরবর্তি সময়ে অনুষ্টিত বিশেষ পরীক্ষার মতই একটি পরীক্ষার আয়োজন করা যেতে পারে। যেখানে ১০০/২০০ নম্বরের একটি মূল্যায়ন পরীক্ষার আয়োজন হবে, শুধুমাত্র সাবেক ফারেগীনরা অংশগ্রহন করবে। ফলাফল যাই হোক মূল্যায়ন পরীক্ষায় পাশ করলে আগের ফলাফল বহাল রেখেই হাইয়্যা কর্তৃপক্ষ সনদ ইস্যু করবে। বিশ্বাস করি এটি সবার জন্য সহজতর ও সম্মানজনক হবে । স্বীকৃতির সুফল সাবেকরাও ভোগ করতে পারতেন। 

আমার অগ্রজ ও অনুজ অনেক বন্ধু ও বড় ভাইদের  সাথে গত কিছুদিন যাবত এই ব্যপারটি নিয়ে আলোচনা থেকে জানতে পারলাম, সরকারি স্বীকৃত সনদ লাভের আগ্রহী অনেকই আছেন, কিন্ত এর শতকরা ১% এর কম নিয়মিত ছাত্রদের মত সকল বিষয়ের পরীক্ষা দিতে অনাগ্রহী। বিশেষ পরীক্ষার আয়জোন হলে শতকরা ৯০% এর উপরে সনদ লাভের জন্য পরীক্ষায় অংশগ্রহনে আগ্রহী। এই যখন অবস্তা তখন বেফাকের সিদ্ধান্ত সাবেকদের সাথে একধরনের মশকারা মনে হচ্ছে। আরোকটু ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল বলে মনে করি। এখনো সময় আছে যদি সম্ভব হয় তবে সিদ্ধান্ত পুণঃবিবেচনা করার উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি। 

৩.
২০১৩ সালের জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের তথ্যমতে দেশে সরকারি পদের সংখ্যা ১৪ লাখ ৫হাজার ৫২৪টি (তথ্যঃ দৈনিক সংগ্রাম ১৭/০৯/২০১৪)। সন্দেহাতীত ভাবে বলা যায় এই সংখ্যা বর্তমানে অনেক বেশী, ভবিষ্যতেও বাড়বে, কথা হচ্ছে এই বিপুল সংখ্যক পদগুলোর যদি মিনিমাম ২% ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিতদের জন্য পদ যেমন ঈমাম মুয়াজ্জিন খতিব ও ধর্মীয় সাবজেক্টের শিক্ষক, পরিচালক, গভেষক ইত্যাদির হয়ে থাকে, তবে উল্লেখযোগ্য একটি অংশ রাষ্ট্রীয় কর্মকান্ডে অংশগ্রহনের সুযোগ লাভ করতে পারার কথা।  কওমী অঙ্গনের তুখোড় মেধাবীরা সামনে আগানোর পথ পেলে অনেকের জন্য মানবেতর জীবন থেকে মুটামুটি সাচ্ছন্দময় জীবনের সন্ধান লাভ করার সুযোগ তৈরি হতো। এই সুযোগটি হাতছানি দিয়ে ডাকলেও আকাবিরদের সিদ্ধান্ত অনেক প্রতিভাধর আলেমরা বঞ্চিত হবেন। 

৪.
পরিশেষে বলতে চাই, বেফাক বোর্ড দেশের সিংহভাগ কওমীয়ান ছাত্রদের অভিবাবক বোর্ড। আরেকবার সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সহিত নিজের সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে সর্বাদিক ফুযালাদেরকে স্বীকৃতির আওতায় আনার জন্য যুগপোযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহনের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। উল্লেখ্য যে, আমি ২০০৭ সালে দাওরায়ে হাদীস সমাপ্ত করি। বেফাকের অধীনে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করি। তারপর ধারাবাহিক ভাবে এখনো পর্যন্ত একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আছি। গত ১২ বছরে জেনারেল শিক্ষাধারার শেষ প্রান্তে উপনীত হয়েছি। আমার নতুন করে সরকারি সনদের প্রয়োজন নেই, তবুও আমার হাজারো বন্ধু সহপাঠী ও অনুজদের জন্য আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। জানি না কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হবে কি না, ইনশা আল্লাহ অচিরেই একটি গোলটেবিল আলোচনা সভার আয়োজনের চিন্তা করছি।


আপনার মতামত লিখুন :
মতামত এর আরও খবর

আরো পড়ুন
ফ্রান্স থেকে ইয়াবর নামের ব্যক্তিকে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর

ফ্রান্স থেকে 'ইয়াবর' নামের ব্যক্তিকে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর

সিলেটের ওসমানি নগরের বাসিন্দা 'ইয়াবর'(৪৫) তিনি ২০১৫ সালে প্যারিসে আসেন…

ভারী তুষার ও অতিরিক্ত ঠান্ডায় বিপর্যস্ত ফ্রান্স বাসিন্দা , নিহত ২

ভারী তুষার ও অতিরিক্ত ঠান্ডায় বিপর্যস্ত ফ্রান্স বাসিন্দা , নিহত ২

গতকাল ফ্রান্সের দক্ষিনপূর্বে আরডিসি , দ্রোমি ,ইসেরা এবং রনি ডিপার্টমেন্টে…

জগন্নাথপুর ছাত্রলীগ ক্যাডার,রাজুর টার্গেট ‘ব্রিটিশ নাগরিকরা

জগন্নাথপুর ছাত্রলীগ ক্যাডার,রাজুর টার্গেট ‘ব্রিটিশ নাগরিকরা

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় রাজু নামের ছাত্রলীগ ক্যাডার, এ নেতার যন্ত্রনায়…

পেঁয়াজের পর এবার বাড়ছে চালের দাম

পেঁয়াজের পর এবার বাড়ছে চালের দাম

পেঁয়াজের পর এবার হঠাৎ করে কুষ্টিয়ায় চালের বাজার অস্থির হয়ে…

১৮০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

১৮০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

শরীয়তপুরের পালং বাজার ও আংগারিয়া বাজারে চড়া দামে পেঁয়াজ বিক্রি…

কিশোরকণ্ঠ মেধা বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

কিশোরকণ্ঠ মেধা বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

কিশোরকণ্ঠ পাঠক ফোরাম সিলেট মহানগরী আয়োজিত মেধাবৃত্তি পরীক্ষা-২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়েছে।…

৭ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম না কমলে হস্তক্ষেপ: হাইকোর্ট

৭ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম না কমলে হস্তক্ষেপ: হাইকোর্ট

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম এক সপ্তাহের মধ্যে না কমলে হস্তক্ষেপ করবেন…

মনে রাখতে হবে, পেঁয়াজও পচে যায়

মনে রাখতে হবে, পেঁয়াজও পচে যায়

পেঁয়াজ মজুদ করে কেউ কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে চাইলে তাদের…