অনিরুদ্ধ জুলফিকার 
টাইম টিউন ডেস্ক
প্রকাশিত:
০২ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:০১ পিএম


কিআনন্দে ছাত্র নিহত : তীব্র সমালোচনার মুখে ‘প্রথম আলো’


কিআনন্দে ছাত্র নিহত : তীব্র সমালোচনার মুখে ‘প্রথম আলো’

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরে রেসিডেনসিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণে দৈনিক ‘প্রথম আলো’র কিশোর ম্যাগাজিন ‘কিশোর আলো’র অনুষ্ঠান কিআনন্দে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক কিশোর শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। নিহত শিক্ষার্থী নাঈমুল আবরার রেসিডেনসিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্র।

আবরারের সহাপাঠীদের বরাতে জানা গেছে, শুক্রবার (১ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে তিনটায় সে বিদ্যুতায়িত হয়। তাৎক্ষণিক অনুষ্ঠানে থাকা কিশোর আলোর মেডিক্যাল টিম তাকে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন এবং দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু অনুষ্ঠানস্থলের কাছাকাছি, মাত্র ৫ মিনিট দূরত্বে থাকা সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে না নিয়ে তাকে কিশোর আলো’র মেডিক্যাল সহযোগী প্রতিষ্ঠান, পাঁচ কিলোমিটার দূরত্বের মহাখালী আয়েশা মেমোরিয়াল হসপিটালে নিয়ে যাওয়া হয়।

আয়েশা মেমোরিয়াল হসপিটালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত ফোন অপারেটর লোকমান হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিকাল সোয়া ৪টায় আবরারকে আমাদের হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। আমাদের কর্তব্যরত চিকিৎসক শ্রীকান্ত সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বিকাল ৪টা ৫১ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

এদিকে অনুষ্ঠানের বিঘ্নতা সৃষ্টির আশঙ্কায় আবরারের বিদ্যুৎস্পৃষ্টের খবর কিশোর আলো কর্তৃপক্ষ পুরো অনুষ্ঠান শেষ হওয়া অবধি চেপে যায়। পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে আবরারের আহত হওয়া থেকে মারা যাওয়া পর্যন্ত কোনো ধরনের খবরই মঞ্চ থেকে প্রচারিত হয়নি। বরং সন্ধ্যায় যথামাফিক ধুমধামের সঙ্গে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।

এতে আবরারের সহপাঠীরাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল সমালোচনার জন্ম হয়েছে প্রথম আলোকে ঘিরে। অনেকে আবরারের নিহত হওয়াকে হত্যাকাণ্ড আখ্যায়িত করে এ হত্যায় প্রথম আলো কর্তৃপক্ষের অবহেলাকে দায়ী করছেন।

এদিকে রেসিডেন্সিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের সহপাঠীর এমন মর্মান্তিক মৃত্যুতে প্রথম আলো’র বিচার দাবি করে আজ কলেজের সামনে বিক্ষোভ করেছে। ‘আমার ভাই মারা গেলো, কিশোর আলো চুপ কেন?’, ‘কিশোর আলোর অমানবিকতা মানি না মানবো না’ স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড হাতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ জানায় তারা।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগকারীরা বলছেন, আবরার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হবার পর তাকে অনুষ্ঠানস্থলের একদম পাশে থাকা সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে না নিয়ে কেন পাঁচ কিলোমিটার দূরের আয়েশা মেমোরিয়ালে নিয়ে যাওয়া হলো। যাত্রাপথে যে ৪৫ মিনিট খরচ হয়েছে, এই ৪৫ মিনিটের ভেতরে যদি তাকে চিকিৎসা দেওয়া যেত, তাহলে হয়তো এই তাজা প্রাণ ঝরে পড়ত না এভাবে।

এ ছাড়া এমন মর্মান্তিক একটা ঘটনার পরও মঞ্চ থেকে এ ব্যাপারে একটা ঘোষণাও না আসায় কিশোরদের প্রতি প্রথম আলো কতটা দায়িত্বশীল, এ নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন সমালোচকরা। তাঁরা বলছেন, একদিকে অনুষ্ঠান উপভোগ করতে আসা হতভাগ্য এক কিশোর মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে, আর অপরদিকে অনুষ্ঠানে চলছে নাচ-গান। ব্যাপারটা মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে নিতান্তই লজ্জা ও অপমানের।


আপনার মতামত লিখুন :
বিশেষ প্রতিবেদন এর আরও খবর

আরো পড়ুন
ফ্রান্স থেকে ইয়াবর নামের ব্যক্তিকে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর

ফ্রান্স থেকে 'ইয়াবর' নামের ব্যক্তিকে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর

সিলেটের ওসমানি নগরের বাসিন্দা 'ইয়াবর'(৪৫) তিনি ২০১৫ সালে প্যারিসে আসেন…

ভারী তুষার ও অতিরিক্ত ঠান্ডায় বিপর্যস্ত ফ্রান্স বাসিন্দা , নিহত ২

ভারী তুষার ও অতিরিক্ত ঠান্ডায় বিপর্যস্ত ফ্রান্স বাসিন্দা , নিহত ২

গতকাল ফ্রান্সের দক্ষিনপূর্বে আরডিসি , দ্রোমি ,ইসেরা এবং রনি ডিপার্টমেন্টে…

জগন্নাথপুর ছাত্রলীগ ক্যাডার,রাজুর টার্গেট ‘ব্রিটিশ নাগরিকরা

জগন্নাথপুর ছাত্রলীগ ক্যাডার,রাজুর টার্গেট ‘ব্রিটিশ নাগরিকরা

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় রাজু নামের ছাত্রলীগ ক্যাডার, এ নেতার যন্ত্রনায়…

পেঁয়াজের পর এবার বাড়ছে চালের দাম

পেঁয়াজের পর এবার বাড়ছে চালের দাম

পেঁয়াজের পর এবার হঠাৎ করে কুষ্টিয়ায় চালের বাজার অস্থির হয়ে…

১৮০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

১৮০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

শরীয়তপুরের পালং বাজার ও আংগারিয়া বাজারে চড়া দামে পেঁয়াজ বিক্রি…

কিশোরকণ্ঠ মেধা বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

কিশোরকণ্ঠ মেধা বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

কিশোরকণ্ঠ পাঠক ফোরাম সিলেট মহানগরী আয়োজিত মেধাবৃত্তি পরীক্ষা-২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়েছে।…

৭ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম না কমলে হস্তক্ষেপ: হাইকোর্ট

৭ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম না কমলে হস্তক্ষেপ: হাইকোর্ট

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম এক সপ্তাহের মধ্যে না কমলে হস্তক্ষেপ করবেন…

মনে রাখতে হবে, পেঁয়াজও পচে যায়

মনে রাখতে হবে, পেঁয়াজও পচে যায়

পেঁয়াজ মজুদ করে কেউ কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে চাইলে তাদের…